শিরোনামঃ

জুড়ীতে খাদ্যের নিরাপদতা শীর্ষক সেমিনার অনুষ্ঠিত

বিশেষ প্রতিনিধিঃ মৌলভীবাজারের জুড়ীতে মুজিববর্ষে কোভিড-১৯ এর স্বাস্থ্যবিধি অনুসরণ করে উপজেলা পর্যায়ে জনসচেতনতা সৃষ্টির লক্ষ্যে খাদ্যের নিরাপদতা শীর্ষক সেমিনার অনুষ্ঠিত হয়েছে। বুধবার বাংলাদেশ নিরাপদ খাদ্য কর্তৃপক্ষের আয়োজনে ও উপজেলা প্রশাসনের সহযোগিতায় জুড়ী উপজেলা নির্বাহী অফিসার আল-ইমরান রুহুল ইসলামের সভাপতিত্বে সেমিনারে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন জুড়ী উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান বীরমুক্তিযোদ্ধা এমএ মোঈদ ফারুক।

অন্যান্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন, মৌলভীবাজার জেলা খাদ্য নিরাপত্তা অফিসার মোহাম্মদ সামসুল আরেফিন, পূর্বজুড়ী ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান সালেহ উদ্দিন আহমেদ, পশ্চিমজুড়ী ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান শ্রীকান্ত দাশ, তৈয়বুননেছা খানম সরকারি কলেজের প্রভাষক শাখাওয়াত হোসেন, উপজেলা প্রাণি সম্পদ কর্মকর্তা ডাঃ হাসিন আহমদ চৌধুরী, জুড়ী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের মেডিকেল অফিসার ডাঃ প্রিয়জ্যোতি ঘোষ অনিক, উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা একাডেমিক সুপারভাইজার আলাউদ্দিন, জুড়ী থানার এস আই জাহাঙ্গীর আলম, উপজেলা যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক শেখরুল ইসলাম, কামিনীগঞ্জ বাজার ব্যবসায়ী কল্যাণ সমিতির সভাপতি হাজী কামাল উদ্দিন, জুড়ী উপজেলা প্রেসক্লাব সভাপতি সিরাজুল ইসলাম, সাধারণ সম্পাদক মোঃ তাজুল ইসলাম, জুড়ী উপজেলা সাংবাদিক সমিতির সাধারণ সম্পাদক সাইফুল ইসলাম সুমন, প্রথম আলো প্রতিনিধি কল্যাণ প্রসূণ চম্পু, ইত্তেফাক প্রতিনিধি কামরুল হাসান নোমান, সকালের সময় প্রতিনিধি মনিরুল ইসলাম, উপজেলা ছাত্রলীগের সাবেক যুগ্ম আহবায়ক আব্দুল হান্নান, ইউপি সদস্য মাহবুব আলম রওশন, শাহীন রেষ্টুরেন্টের মালিক মোঃ আক্কাছ মিয়া, কবির হোটেলের মালিক কবির উদ্দিন, ব্যবসায়ী মনিরুল ইসলাম প্রমূূখ।

সেমিনারে বক্তারা বলেন, নিরাপদ খাদ্যের বিষয়টি বর্তমানে বেশ আলোচিত। নানাভাবে খাদ্যে ভেজাল ও কীটনাশক ব্যবহৃত হচ্ছে। মানুষ এ খাবার গ্রহণ করছে। পরবর্তী সময়ে বিভিন্ন ধরনের স্বাস্থ্য সমস্যায় ভুগছে। মানুষের সুস্থ জীবনের জন্য নিরাপদ খাদ্যের কোনো বিকল্প নেই। সুস্থ জাতি গঠনেও নিরাপদ খাদ্যের বিকল্প নেই। তাই জনগণকে নিরাপদ খাদ্য গ্রহণে সচেতন করে বঙ্গবন্ধুর সোনার বাংলা বিনির্মানে নিরাপদ খাদ্য নিশ্চিতকরনে সবাইকে ভুমিকা রাখতে হবে।

বাংলাদেশে নিরাপদ খাদ্য ব্যবস্থাপনা একটি বিশাল চ্যালেঞ্জ। দেশে ক্ষুদ্র বা অপ্রাতিষ্ঠানিক খাদ্য ব্যবসায়ীদের বেশির ভাগের পেশাগত জ্ঞান বা প্রশিক্ষণ নেই। সব মানুষের জন্য নিরাপদ খাদ্য একটি জাতীয় প্রত্যাশা। দেশের মানুষের খাদ্যাভ্যাস, ধর্মীয় মূল্যবোধ, সংস্কৃতি, আর্থসামাজিক প্রেক্ষাপট ইত্যাদি বিবেচনায় নিয়ে যেন সবাই সহজে ও সুলভ মূল্যে খাদ্য পেতে পারে, সে জন্য সবার সক্রিয় অংশগ্রহণ প্রয়োজন।

অন্যান্য খবর পড়ুন