শিরোনামঃ

জুড়ীতে কুপিয়ে যুবক হত্যার ৬ ঘন্টার মাথায় ওসির তৎপরতায় আসামি গ্রেফতার

বিশেষ প্রতিনিধিঃ মৌলভীবাজার জেলার জুড়ীতে গরুর ঘাস খাওয়ানো কে কেন্দ্র করে একজনকে কুপিয়ে হত্যা করা হয়েছে। হত্যার ৬ ঘন্টার মাথায় ওসির তৎপরতায় আসামিকে গ্রেফতার করা হয়েছে। গ্রেফতারকৃত আসামির নাম অনরজিৎ প্রাণিকা (২৬) উপজেলার সাগরনাল চা বাগানের সুকুমার প্রাণিকার ছেলে।

মঙ্গলবার (২৩ মার্চ) সন্ধ্যার দিকে সাগরনাল চা বাগানে গরুকে ঘাস খাওয়ানোকে কেন্দ্র করে এ ঘটনাটি ঘটে। নিহত ব্যক্তির নাম মনা পাশি (২০)। তিনি উপজেলার সাগরনাল ইউনিয়নের সাগরনাল চা বাগানের ৩ নং সেকশনের শংকর পাশির ছেলে। মনা পাশীকে ধারালো অস্ত্র দিয়ে কুপিয়ে হত্যা করে ঘাতক অনরজিৎ।

এলাকাবাসীর সাথে কথা বলে জানা যায়, সাগরনাল চা বাগানে গরুর ঘাস খাওয়ানোকে কেন্দ্র করে কথাকাটাকাটির একপর্যায়ে দুজন একে অপরকে আঘাত করে। পরে হাতে থাকা দা দিয়ে দুইজনই দুজনকে কুপানো শুরু করে। দায়ের কুপের মারাত্মক আঘাতে ঘটনাস্থলে মনা পাশির মৃত্যু হয়।

সাগরনাল চা বাগানের চিকিৎসক আবুল হোসেন বলেন, মৃত্যুর খবর পেয়ে আমি ঘটনাস্থলে গিয়ে লাশটি জমিতে পড়ে থাকতে দেখি। মনা পাশির দেহে ধারালো ‌দায়ের কুপের অসংখ্য চিহ্ন রয়েছে। সাগরনাল ইউনিয়নের চেয়ারম্যান এমদাদুল ইসলাম চৌধুরী লিয়াকত বলেন, সন্ধ্যায় সাগরনাল চা-বাগানে গরুর ঘাস খাওয়ানো কে কেন্দ্র করে অনরজিৎ প্রাণিকা ও মনা পাশির মধ্যে কথা কাটাকাটির এক পর্যায়ে একে অপরকে দা দিয়ে আঘাত করে। দা দিয়ে কুপানোর এক পর্যায়ে মনা পাশির মৃত্যু হলে লাশ ফেলে সে পালিয়ে যায়। অনরজিৎ প্রাণিকা (২৬) একই বাগানের সুকুমার প্রাণিকার ছেলে।

জুড়ী থানার অফিসার্স ইনচার্জ সঞ্জয় চক্রবর্তী কুপিয়ে একজনকে হত্যার অভিযোগে প্রধান আসামি কে গ্রেফতারের বিষয়টি নিশ্চিত করে বলেন, তুচ্ছ ঘটনাকে কেন্দ্র করে ওই ব্যক্তিকে কুপিয়ে হত্যা করা হয়। হত্যার পর লাশ ফেলে অনরজিৎ প্রাণিকা পালিয়ে যায়। লাশ ময়নাতদন্তের জন্য মৌলভীবাজার সদর হাসপাতালের মর্গে প্রেরণ করা হয়েছে। হত্যার পর আসামিকে গ্রেফতার করার জন্য আমরা বিভিন্ন জায়গায় অভিযান পরিচালনা করি। অবশেষে প্রধান আসামিকে আমরা গ্রেফতার করতে সক্ষম হই।

অন্যান্য খবর পড়ুন