শিরোনামঃ

জুড়ীতে পরিবেশমন্ত্রীর কাবিটা প্রকল্পে বদলে গেল কয়েকটি গ্রামের দৃশ্যপট

বিশেষ প্রতিনিধিঃ মৌলভীবাজারের জুড়ী ও বড়লেখা আসনের স্থানীয় সংসদ সদস্য এবং সরকারের পরিবেশ, বন ও জলবায়ু পরিবর্তন বিষয়ক মন্ত্রী মোঃ শাহাব উদ্দিন এমপির কাবিটা বিশেষ প্রকল্পের বরাদ্দে পাল্টে যাচ্ছে গ্রামীণ দৃশ্যপট। গ্রামীণ মানুষের জীবনযাত্রায় এসেছে নানা পরিবর্তন। সহজে ফসল সংগ্রহের ক্ষেত্রে বেগ পেতে হচ্ছে না স্থানীয় কৃষকদের।

উপজেলার জায়ফরনগর ইউনিয়নের দিগলবাক গ্রামের পাবি জুড়ীর উপর নির্মিত পিআইও কালভার্ট থেকে হেকিমপুর গ্রামের মনোরঞ্জনের বাড়ি পর্যন্ত এবং পশ্চিম গোবিন্দপুর থেকে হেকিমপুর পর্যন্ত পরিবেশ, বন ও জলবায়ু পরিবর্তন মন্ত্রী মোঃ শাহাব উদ্দিন এমপির কাবিটা প্রকল্পের আওতায় সাড়ে ৪ লক্ষ টাকা ব্যায়ে চিরাইয়া খাল খনন ও উভয় পাশের রাস্তা নির্মাণের ফলে বদলে গেছে কয়েকটি গ্রামের দৃশ্যপট।

উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন অফিস ও এলাকাবাসীর সূত্রে জানা যায়, স্থানীয় সংসদ সদস্য ও পরিবেশ মন্ত্রীর কাবিটা বিশেষ প্রকল্পের আওতায় দুর্যোগ ও ত্রাণ ব্যবস্থাপনা মন্ত্রণালয়ের ২০২০/২০২১ অর্থবছরে উপজেলার জায়ফরনগর ইউনিয়নের দিগলবাক সহ কয়েকটি গ্রামের মধ্য দিয়ে বয়ে যাওয়া চিরাইয়া খাল খনন প্রকল্প সাড়ে ৪ লক্ষ টাকা ব্যায়ে প্রকল্প চলমান আছে। এই প্রকল্পের আওতায় খালের দুই পাশে ৩৬০০ ফুট রাস্তা নির্মাণ ও খাল খনন হওয়ায় আশেপাশের কয়েকটি গ্রামের জনসাধারণের যোগাযোগ‌ ও কৃষি ক্ষেত্রে সৃষ্টি হয়েছে এক নতুন মাত্রা। এছাড়াও কৃষকদের সুবিধার্থে পানি নিষ্কাশনের জন্য চিরাইয়া খাল থেকে আরোও ৫০০ ফুট ছোট একটি খাল খনন করায় হাজার হাজার কৃষকের ফসল উৎপাদনের ক্ষেত্রে এক নতুন দিগন্তের উন্মোচন হয়েছে।

সরেজমিনে এ প্রকল্পটি পরিদর্শনে গেলে স্থানীয়রা আরোও জানান, রাস্তা না থাকায় আশেপাশে কয়েকটি গ্রামের মানুষের যোগাযোগ ব্যবস্থা ছিল প্রায় বিচ্ছিন্ন। রাস্তা না থাকায় গ্রামগুলোর কোমলমতি শিক্ষার্থীরা বিদ্যালয়ে যেতে পারতনা। বর্তমানে রাস্তা নির্মাণের ফলে কৃষকরা সহজেই যেমনি তাদের ধান সংগ্রহ করতে পারবে তেমনি সহজেই এলাকার লোকজন যাতায়াত করতে পারবে। স্থানীয় ইউপি সদস্য আব্দুল খালিক ও এলাকার বাসিন্দা লোকুস মিয়া, সুমন বিশ্বাস ও পাখি মিয়া বলেন, রাস্তা নির্মাণের ফলে আমাদের এলাকাবাসী অনেক উপকৃত হয়েছে। মাননীয় মন্ত্রী মহোদয় কে আমরা ধন্যবাদ জানাই।

প্রকল্প বাস্তবায়ন কমিটির সভাপতি ও জেলা পরিষদের সদস্য মোঃ বদরুল ইসলাম বলেন, এলাকাবাসীর দীর্ঘদিনের দাবি ছিল রাস্তা নির্মাণের। পরিবেশমন্ত্রীর বিশেষ বরাদ্দে রাস্তা নির্মাণ ও খাল খননের ফলে হাজার হাজার কৃষক সহ সাধারন জনগণ উপকৃত হবে। এলাকাবাসীর পক্ষ থেকে মাননীয় মন্ত্রী মহোদয় কে ধন্যবাদ জানাই।

উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা মোঃ ওমর ফারুক বলেন, প্রকল্পটি বাস্তবায়নের মাধ্যমে এলাকার জনগণ ও সাধারণ কৃষকরা বেশ উপকৃত হবে। আমি নিজে নিয়মিত প্রকল্পটি পরিদর্শন করে কাজের মানের ব্যাপারে খোঁজখবর রাখছি।

অন্যান্য খবর পড়ুন