শিরোনামঃ

জুড়ীতে কঠোর লকডাউন বাস্তবায়নে কাজ করছে প্রশাসন

সাইফুল ইসলাম সুমনঃ মৌলভীবাজারের জুড়ীতে করোনার সংক্রমণরোধে দেশব্যাপী সাত দিনের কঠোর লকডাউনের প্রথম দিনে প্রশাসনের ব্যাপক তৎপরতা লক্ষ্য করা গেছে। বৃহস্পতিবার (১ জুলাই) উপজেলা প্রশাসনের পাশাপাশি আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর কঠোর তৎপরতায় প্রায় ফাঁকা ছিল উপজেলা সদর সহ অন্যান্য এলাকা।

সেই সাথে উপজেলা শহরের প্রবেশদ্বারে ছিলো পুলিশের চেকপোস্ট। উপজেলা প্রশাসনসহ আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীকে সকাল থেকে শহরের বিভিন্ন বড় বড় মার্কেটে নজরদারি করতে দেখা গেছে।

উপজেলা প্রশাসন সূত্রে জানা যায়, কঠোর লকডাউন বাস্তবায়ন করতে ও সরকারি আদেশ অনুযায়ী করোনা সংক্রমণ মোকাবিলায় মানুষের চলাচলসহ অন্যান্য বিষয়ে কঠোর বিধিনিষেধ নিশ্চিত করতে শহরে উপজেলা প্রশাসন আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সহায়তায় ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনা করেছে। বাইরে যারা বের হয়েছেন তাদের কাছে কারণ জানতে চাওয়া হচ্ছে। সন্তোষজনক উত্তর দিতে না পারলে জরিমানার আওতায় আনা হচ্ছে। এদিকে কঠোর লকডাউন কার্যকর করতে পুলিশের পাশাপাশি বাংলাদেশ সেনাবাহিনী ও বিজিবির মোতায়েন করা হয়েছে।

সরেজমিনে দেখা যায়, কঠোর লকডাউন বাস্তবায়নে উপজেলা নির্বাহী অফিসার সোনিয়া সুলতানা, সহকারী কমিশনার (ভূমি) মোস্তাফিজুর রহমান, জুড়ী থানার অফিসার্স ইনচার্জ (ওসি) সঞ্জয় চক্রবর্তী ও বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর ১৭ পদাতিক ডিভিশন সিলেট সেনানিবাসের অধীনস্থ ৫০ ফিল্ড রেজিমেন্ট আর্টিলারি’র সেনা কর্মকর্তা ক্যাপ্টেন রিয়াদ হাসান কাজ করে যাচ্ছেন।

করোনা ভাইরাসের সংক্রমণ প্রতিরোধে উপজেলা নির্বাহী অফিসার সোনিয়া সুলতানা উপজেলার কামিনীগঞ্জ বাজারে অভিযান পরিচালনা করে সংক্রমন প্রতিরোধ আইন ২০১৮ সালের ২৫ এর ২ ধারা অনুযায়ী ০১ টি মামলায় এক ব্যবসায়ীকে আইন অমান্য করে দোকান খোলা রাখায় ১০০০ টাকা জরিমানা করেন।

উপজেলা নির্বাহী অফিসার সোনিয়া সুলতানা বলেন, সরকার ঘোষিত কঠোর লকডাউন বাস্তবায়নে উপজেলা প্রশাসনের পাশাপাশি জুড়ী থানা পুলিশ, সেনাবাহিনী ও বিজিবি তৎপর রয়েছে। স্বাস্থ্যবিধি অমান্যকারীদের বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা নেওয়া হবে। এ সময় তিনি জনসাধারণকে স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলার আহ্বান জানান।

অন্যান্য খবর পড়ুন