শিরোনামঃ

জুড়ীতে প্রথমদিনে সফলভাবে গণটিকাদান সম্পন্ন

সাইফুল ইসলাম সুমনঃ মৌলভীবাজারের জুড়ী উপজেলায় প্রথম দিনে সফলভাবে সম্পন্ন হয়েছে টিকাদান কার্যক্রম। সকাল ৯টা থেকে একযোগে ৬টি কেন্দ্রে শুরু হয়ে বিকাল ৩টা পর্যন্ত চলার কথা ছিলো এই কার্যক্রম। তবে কোনও কেন্দ্রে বেলা ১টায় শেষ হয়, কোনও কেন্দ্রে চলে দুপুর ২টা পর্যন্ত। সম্পন্ন হয়ে যায় কেন্দ্রের বরাদ্দ। তবুও ছিলো টিকা নিতে আসা মানুষের ভিড়। অনেকেই হতাশ হয়ে ফিরে গেছেন টিকা না নিয়ে।

শনিবার (৭ আগস্ট) করোনাভাইরাসের গণটিকা জুড়ীর যেসব কেন্দ্রে দেয়া হয়েছে সেগুলো হলো- জায়ফরনগর ইউনিয়নের জায়ফরনগর উচ্চ বিদ্যালয়, পশ্চিমজুড়ী ইউনিয়নের নিরদ বিহারী উচ্চ বিদ্যালয়, পূর্বজুড়ী ইউনিয়নের ছোটধামাই উচ্চ বিদ্যালয়,  ফুলতলা ইউনিয়নের বশির উল্লাহ উচ্চ বিদ্যালয়, সাগরনাল ইউনিয়নের পাতিলাসাঙ্গন উচ্চ বিদ্যালয় এবং গোয়ালবাড়ী ইউনিয়নের হাজী কমরউদ্দিন সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়।

প্রত্যেকটি টিকাকেন্দ্রে ৩টি করে বুথ ছিলো। প্রতিটি বুথে ২জন করে ভ্যাক্সিনেটর ও ৩ জন স্বেচ্ছাসেবী দায়িত্ব পালন করে। প্রত্যেকটি বুথে ২০০ জন টিকা নেন। কেন্দ্রে একটি মেডিকেল টিম এবং সার্বক্ষনিক কেন্দ্রের ফোকাল পয়েন্ট টিকাদান কার্যক্রম তদারকি করবেন।

উপজেলার ৬টি কেন্দ্রে মোট ৩৬০০ জনকে সিনোফার্মের প্রথম ডোজ দেওয়া হয়েছে। এর মধ্যে পুরুষ ১৭৫২ জন এবং মহিলা ১৮৪৮ জন।

সকাল ৯টায় জুড়ী উপজেলার সকল ইউনিয়নে একযোগে টিকা কার্যক্রম শুরু হয়। এ গণটিকা কার্যক্রম উদ্বোধন করেন মৌলভীবাজার জেলার অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (রাজস্ব ও শিক্ষা) মোঃ মেহেদী হাসান। তিনি উপজেলার বিভিন্ন টিকাকেন্দ্র পরিদর্শন করেন। এসময় উপস্থিত ছিলেন- জুড়ী উপজেলা নির্বাহী অফিসার (ইউএনও) সোনিয়া সুলতানা, উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা (টিএইচও) ডাঃ সমরজিৎ সিংহ, জুড়ী থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) সঞ্জয় চক্রবর্তী, উপজেলা পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা আব্দুল মতিন, উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের মেডিকেল অফিসার (রোগ নিয়ন্ত্রণ) ডাঃ মোহাম্মদ শহীদুল আমিন, উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের মেডিকেল অফিসার ডাঃ ইমামুল মুনতাসির সহ সকল ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যানসহ অন্যান্য সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তাগণ।

একপ্রতিক্রিয়ায় জুড়ী উপজেলা আওয়ামীলীগের সাধারন সম্পাদক ও ফুলতলা ইউনিয়ন পরিষদের ৫ বারের চেয়ারম্যান মাসুক আহমদ বলেন, দীর্ঘ দুই বছর প্রাণঘাতী করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত ও মৃত্যুর খবর শুনতে শুনতে অস্তির সময় পার করে আসছিলেন মানুষ। মানুষের এই অস্তিরতা কাটিয়ে তোলতে সুখকর বার্তা গণটিকা। জুড়ীতে করোনা ভাইরাসের গণটিকাদানের প্রথম দিনে টিকা দিতে উৎসবে মেতেছে সাধারণ মানুষ। টিকাদান কেন্দ্রগুলোর সকল বুথেই টিকা গ্রহিতাদের উৎসবমুখর জটলা দেখা গেছে।

পূর্বজুড়ী ইউনিয়নের ছোটধামাই উচ্চ বিদ্যালয় কেন্দ্রে টিকা গ্রহিতা মনোয়ারা বেগম বলেন, শুনেছি উপজেলা হসপিটালে টিকা গ্রহণে দীর্ঘ লাইলে দাঁড়াতে হতো। এখন বাড়ির পাশে টিকাদান কেন্দ্র চালু হওয়ায় কোন জটিলতা ছাড়াই টিকার প্রথম ডোজ দিয়েছি। টিকা গ্রহিতা তাহমিনা আক্তার বলেন, টিকা নিমু-নিচ্ছি বলে এতদিন নেওয়া হয়নি। এখন সরকার সুন্দর একটা ব্যবস্থা করে দেওয়ায় টিকা নিতে সহজ হয়েছে।

অন্যান্য খবর পড়ুন